“সরকার অন্ধ হয়ে গেছে, দুর্ঘটনায় শ্রমিকদের মৃত্যু হয়নি, এটি পরিকল্পিত হত্যা”: ইমতিয়াজ জলীল

29

পিপিএন বাংলা, নিউজ ডেস্ক: হেঁটেই ফিরছিলেন পরিযায়ী শ্রমিকের দল। সম্বল বলতে কয়েকটা আধসেঁকা রুটি। কবে পৌঁছাতে পারবেন বাড়ি নিজেরাই জানেন না। নিজের রাজ্যের পুলিশ আদৌ ঢুকতে দেবে তো তাঁদের !! তারও কোন নিশ্চয়তা নেই। শুধু এইটুকু জানতেন- বাড়ি ফিরতে গেলে হাঁটতে হবে। রেললাইন ধরেই হাঁটতে হবে। রাস্তায় হাঁটলেই জুটবে পুলিশের লাঠি।

সারাদিন হেঁটেছেন। আরও কয়েকশো কিলোমিটার হাঁটতে হবে। শরীর বড় ক্লান্ত, দু’পা পাথরের মতো ভারী হয়ে এসেছে। তাই রেল লাইনেই একটু জিরিয়ে নিতে গিয়ে ঘুমিয়ে পড়া। ওটাই ছিল শেষ ঘুম। মালগাড়ি চলে যায় ঘুমন্ত ২১টি শরীরের উপর দিয়ে।

রাষ্ট্রের চরম অবহেলায়, চরম অব্যবস্থার বলি ১৬জন শ্রমিক চির নিদ্রায় শায়িত, ওদের লাশ ফেরার অপেক্ষায় তাদের পরিবার। যাঁদের রক্ত ঘামে রাষ্ট্রের চাকা ঘোরে, সেই শ্রমিকের প্রানের মূল্য বড্ড কম এই ডিজিটাল ইন্ডিয়ায়, এই আচ্ছে দিনে।

ঘটনাস্থলে পৌঁছে কেন্দ্র সরকারের উপর একরাশ ক্ষোভ উগরে দেন ওরঙ্গাবাদ লোকসভা কেন্দ্রের সাংসদ তথা মহারাষ্ট্র অল্-ইন্ডিয়া মজলিসে ইত্তেহাদুল মুসলিমিনের সভাপতি ইমতিয়াজ জলিল বলেন, “এটা দুর্ঘটনা নয় বরং একটি পরিকল্পিত হত্যা! এই হত্যালীলার জন্য যতটা অরঙ্গাবাদ জেলা প্রশাসন,ও রেল কর্তৃপক্ষ তার চেয়েও বেশি দায়ী প্রধানমন্ত্রী ও তার অফিস। শ্রমিকদের সঠিক ভাবে বাড়ি পৌঁছানোর জন্য কোন পরিকল্পনা নেই, শুধু ভাষণ দিচ্ছেন প্রধানমন্ত্রী।”

Comment

Please enter your comment!
Please enter your name here